‘উদ্ধার হওয়া রকেট লাঞ্চারের গোলাগুলো খুব বিপজ্জনক’


স্টাফ রিপোর্ট : হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এর অভিযানে উদ্ধার হওয়া রকেট লাঞ্চারের গোলা অনেক ‘বিপজ্জনক’। বুধবার (৩মার্চ) বিজিবি ৫৫ ব্যাটালিয়ানের হবিগঞ্জ ক্যাম্পের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সামীউন্নবী চৌধুরী এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, রকেট লাঞ্চারের গোলা যখন ফ্যাক্টরি থেকে বের হয় তখন একটি নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসরণ করে। গোলাগুলো যত পুরাতন হবে সেটা তত বিপজ্জনক হতে থাকে।

পুরাতন ‘গোলা’ কখন বিস্ফোরিত হবে সেটা আমরা কেউ বলতে পারি না, যে কোনও সময় যে কোনও ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

উদ্ধার হওয়া গোলা কোন দেশের তৈরি এমন প্রশ্নের জবাবে এই লেফটেন্যান্ট কর্নেল বলেন, উদ্ধার হওয়া ‘গোলা’ একটি জনপ্রিয় গোলা, এটি সব দেশে পাওয়া যায়। এই গোলা মূলত এন্টি ট্যাংক বিধ্বংসী হিসেবে কাজ করে।

মামলা ও নিষ্ক্রিয়করণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্মকতাদের সঙ্গে আলাপ- আলোচনা ও পরামর্শক্রমে রকেট লাঞ্চারের গোলক নিষ্ক্রিয়করণ প্রক্রিয়া নিয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে এবং এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হবে।

অভিযানে কাউকে আটক করা যায়নি বলেও জানান এ অধিনায়ক।

এর আগে (২ মার্চ) মঙ্গলবার বিকেল থেকে রাতভর হবিগঞ্জের চুনারুঘাট সীমান্ত হতে এক কিলোমিটার অভ্যন্তরে সাতছড়ি রিজার্ভ ফরেস্টে অভিযান পরিচালনা করে মাটির নিচ হতে পলিথিন দিয়ে মোড়ানো প্লাস্টিকের কাভারে রাখা রকেট লাঞ্চারের ১৮টি গোলা উদ্ধার করা হয়।

অভিযান অব্যাহত

এদিকে এই উদ্যানে দ্বিতীয় দিনেও অভিযান চলছে। গতকাল মঙ্গলবার এ অভিযান শুরু হয়। এ অভিযানে অব্যাহত রয়েছে। এ বিষয়ে বিজিবি ৫৫ ব্যাটালিয়ানের হবিগঞ্জ ক্যাম্পের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সামীউন্নবী চৌধুরী জানিয়েছেন, সাতছড়ি দীর্ঘদিন থেকেই তাদের নজরদারিতে ছিল। গোপন তত্যের ভিত্তিতে তারা অভিযান চালাচ্ছেন। সেখানে আরও অস্ত্র এবং গোলাবারুদ থাকতে পারে এমন কয়েকটি সন্দেহজনক স্থান বিজিবির বিশেষ টিম ঘিরে রেখেছে। নতুন কোনও তথ্য পেলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানানো হবে বলেও জানান তিনি ।

একাত্তরের কথা/ এইচটি