কোচ ভালো করতে না পারলে দ্রুত সিদ্ধান্ত : সালাউদ্দিন

স্পোর্টস ডেস্ক :: ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টের ফাইনালে বাজে পারফর্ম করে হারতে হয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল দলকে। জেমি ডে’র শিষ্যদের বিপক্ষে ২-১ গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে স্বাগতিক নেপাল। প্রথমার্ধে ২-০ গোলে পিছিয়ে থেকে ম্যাচের শেষ দিকে একটি গোল শোধ করতে সক্ষম হয় জামাল ভূঁইয়ার দল। এমন অবস্থায় কাঠগড়ায় প্রধান কোচ। দেশে ফিরেই জরুরি বৈঠকে যোগ দিতে হয়েছে তাকে।

শনিবার (৩ এপ্রিল) বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিন ও ন্যাশনাল টিমস কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদের সঙ্গে বৈঠক করেন জেমি ও তার সহকারী স্টুয়ার্ট ওয়াটকিস।

মতিঝিলে ফেডারেশন কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগও। এরপরই গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন বাফুফে প্রধান।

কাজী মো. সালাউদ্দিন বলেন, ‘আমরা কোচের সঙ্গে বসেছিলাম কোন জায়গায় সমস্যা হয়েছে। আমার, আপনার, দেশবাসীর মন খারাপ। আশা করেছিলাম শিরোপাটা পাবো। সেটা নিয়েই আমরা আলোচনায় বসেছিলাম। সমাধানের জন্য বেশি সময় নিবো না। দ্রুত সময়ের মধ্যে আশা করি সমাধান করা হবে।’

ফাইনাল ম্যাচে একাদশে সোহেল রানা ও মাহববুর রহমান সুফিলদের নামানো হয়নি। এই নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়তে হয় ইংলিশ কোচ জেমি ডে’কে।

বাফুফে প্রধানের ভাষ্য, ‘কোচ মনে করছেন তিনি তার সেরা একাদশ নামিয়েছেন। এটা নিয়ে আমরাও যুক্তি-তর্ক উপস্থাপন করেছি। তবে তার মতে, অন্যদের ফিটনেসে সমস্যা ছিল। আমি বলবো এটা সেরা, আপনি বলবেন অন্যটা। আসলে বিষয়টা হচ্ছে ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গির। আমরা আমাদের পর্যবেক্ষণ জানিয়েছি। তিনিও নিজেরটা জানিয়েছেন। এটা নিয়ে কাজ চলছে।’

জেমি ডে’ বার বার ব্যর্থ হচ্ছেন। তার বিকল্প নিয়ে ভাবা হচ্ছে? এমন প্রশ্নে জবাবে সালাউদ্দিন জানান, ‘বিকল্প চিন্তা হবে। একটা সময় ব্যর্থতার স্টপেজ আছে। কবে, কখন এবং কীভাবে কারণ সংজ্ঞায়িত করতে হবে। এই সমস্যাটা আমি আসলে বোঝাতে পারছি না। সমস্যাটা সবাই দেখছে। তারা (কোচিং স্টাফ) ভালো করতে না পারলে দ্রুতই যেকোনও সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

এদিকে ন্যাশনাল টিমস কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ জানিয়েছেন, বৈঠকে নেপালে ব্যর্থতার বিশ্লেষণের পাশাপাশি কাতারে বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচের পরিকল্পনাও করা হয়েছে।

‘আমরা সবাই আশাহত। পূর্ব প্রস্তুতি, খেলার সময় খেলোয়াড়দের কেমন অবস্থা ছিল এবং ম্যাচের বিশ্লেষণ নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। আগামী জুন মাসে কাতারে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচ রয়েছে। যেখানে প্রতিপক্ষ ওমান, আফগানিস্তান ও ভারত। এই ম্যাচগুলোর আগে কীভাবে আমরা কাজ করবো সেগুলো নিয়েও কথা হয়েছে।’

দেশজুড়ে লকডাউন শুরুর জন্য পেশাদার লিগের দ্বিতীয় ধাপ পেছানো হতে পারে। অন্যদিকে জাতীয় দলের ক্যাম্প শুরু নির্ভর করবে লিগের সূচির উপর।

কাজী নাবিল যোগ করেন, ‘সোমবার থেকে লকডাউন শুরু হচ্ছে। তাই আপাতত লিগ শুরু হচ্ছে না। লিগ কবে শুরু হবে তার ওপর নির্ভর করবে জাতীয় দল নিয়ে আবাসিক অনুশীলন শুরু করবো। কাতারে যাওয়ার আগে খুব সম্ভবত একমাস আগ থেকে আমরা অনুশীলন শুরু করবো।’

একাত্তরেরকথা/ইআ