ফিলিপাইনে ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে নিহত ৯

দশদিক ডেস্ক :: ফিলিপাইনে ঘুর্ণিঝড় কম্পাসুর আঘাতে ৯ জন নিহত হয়েছেন। সোমবার (১১ অক্টোবর) আঘাত হানা ঘূর্ণিঝড়ে নিখোঁজ হয়েছেন আরও ১১ জন। দেশটির জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপণা কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, সোমবার সন্ধ্যার দিকে ঘূর্ণিঝড় কম্পাসু ফিলিপাইনের বেশ কয়েকটি উপকূলে আছড়ে পড়ে। দেশটিতে দানা বাঁধতে থাকা ছোট একটি ঘুর্ণিঝড়কে গ্রাস করে নিয়েছে কম্পাসু। ফলে কয়েকগুণ শক্তি নিয়ে আগাত হানে কম্পাসু।

আবহাওয়া দপ্তর জানায়, কম্পাসু যেসব এলাকায় সরাসরি আঘাত হেনেছে, সেসব স্থানে বাতাসের গতিবগ ছিল ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটারেরও বেশি।

দেশটির জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, ফিলিপাইনের উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ বেনগুয়েতে ঝড়ো বাতাস ও মুষলধারে বর্ষণের প্রভাবে সৃষ্ট ভূমিধসে ৪ জন মারা গেছেন। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সৃষ্ট আকস্মিক বন্যায় দেশটির দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলীয় দ্বীপরাজ্য পালাওয়ানে মারা গেছেন আরও ৫ জন।

এছাড়া, বিভিন্ন অঞ্চলে ভূমিধসের কারণে নিখোঁজ হয়েছেন আরও ১১ জন। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ রয়টার্সকে নিশ্চিত করেছে তাদের উদ্ধারে তৎপরতা জারি আছে। সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকাগুলো থেকে এ পর্যন্ত প্রায় এক হাজার ৬০০ মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে আনা হয়েছে।

ফিলিপাইন মূলত দ্বীপপুঞ্জ রাষ্ট্র। এই দ্বীপপুঞ্জে মোট ৭ হাজার ৬০০ টিরও বেশি দ্বীপ রয়েছে। প্রতিবছর এসব দ্বীপে প্রায় ২০ টি ঝড় কিংবা ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে। আর ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ব্যাপক বর্ষণের কারণে ভূমিধস ফিলিপাইনে একটি সাধারণ ঘটনা।

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রডরিগো দুতার্তের মুখপাত্র হ্যারি রকু জানিয়েছেন, প্রেসিডেন্ট নিজে জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের উদ্ধার অভিযান নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন।

একাত্তরেরকথা/ইআ-০১